করোনা আক্রান্ত জেনেও গাড়িতে তরুণীকে ধর্ষণ করলো অ্যাম্বুলেন্সে চালক, নারী কোথায় নিরাপদ!

নিউজ ডেস্ক : মহামারীতে চিকিৎসার করাতে গিয়ে ধর্ষণ। কোভিড-পজিটিভ তরুণীকে অ্যাম্বুল্যান্সের মধ্যে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল চালকের বিরুদ্ধে। ৫ আগস্ট শনিবার কেরালার রাতেকেরলের পাঠানমথিট্টা জেলার এই ঘটনায় পুলিশ থেকে চিকিৎসা মহলে ব্যাপক আলোড়ন পড়েছে। জেলার পুলিশ সুপার কেজি সিমন জানিয়েছেন, কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ওই অ্যাম্বুল্যান্স চালককে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন কেরলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী কেকে শৈলজা। অন্য দিকে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেছে বিজেপি।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, স্থানীয় পাঠানমথিট্টার একটি পরিবারের দুই মহিলার কোভিড পজিটিভ রিপোর্ট আসে। সম্প্রতি কেরল সরকার একটি নির্দেশিকায় জানায়, শুধুমাত্র অ্যাম্বুল্যান্সের এক জন চালকই কোভিড রোগীদের হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করতে পারবেন। সেই মতো শনিবার মধ্যরাত নাগাদ ওই পরিবারের দুই মহিলাকে হাসপাতালে ভর্তির জন্য ওই চালক একাই গিয়েছিলেন। স্বাস্থ্য প্রশাসনের নির্দেশ মতো প্রথমে এক জনকে নিয়ে গিয়ে একটি হাসপাতালে ভর্তি করান। পরে দ্বিতীয় মহিলাকে অন্য হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য অ্যাম্বুল্যান্সে তোলেন। মাঝপথে একটি নির্জন জায়গায় অ্যাম্বুল্যান্স দাঁড় করিয়ে বছর বাইশের ওই তরুণীকে ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগ। পরে তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করান।এর পর ওই তরুণী হাসপাতালের চিকিৎসকদের পুরো ঘটনা জানান। সেখানেই তাঁর মেডিক্যাল টেস্টে ধর্ষণের প্রমাণ মিলেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ঘটনার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই গ্রেফতার হয় অভিযুক্ত। পুলিশ জানিয়েছে, ২৯ বছর বয়সী ওই অ্যাম্বুল্যান্স চালক পরিকল্পিত ভাবে এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটিয়েছে। আগেও খুনের চেষ্টা-সহ একাধিক মামলায় অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে।

স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানানো হয়েছে, ওই চালককে অস্থায়ী ভাবে কাজের জন্য নিয়োগ করা হয়েছিল। তবে তাঁর বিরুদ্ধে এই ধরনের মারাত্মক অভিযোগ থাকা সত্ত্বেও কী ভাবে নিয়োগ করা হল, তা খতিয়ে দেখছে স্বাস্থ্য দফতর। অন্য দিকে এই ঘটনার পর স্বাস্থ্য দফতর নতুন একটি নির্দেশিকা জারি করে বলেছে, অ্যাম্বুল্যান্সে শুধুমাত্র একজন মহিলা রোগী থাকলে এক জন তাঁকে আনতে পারবেন না। ন্যূনতম দু’জন থাকতে হবে। রাজ্যের সব অ্যাম্বুল্যান্স চালকের ব্যক্তিগত তথ্যও চেয়ে পাঠিয়েছে স্বাস্থ্য দফতর। পুলিশের পাশাপাশি স্বাস্থ্য দফতরও ঘটনার আলাদা করে তদন্ত করছে।

বাস্তবে দেখা যায় করোনা হলে সমাজ ও পাড়া থেকে বিতাড়িত হতে হয়। বাড়িতে তোলা মারা হয়, ভয়ে আক্রান্ত বাড়ির লোকদের দোকান, বাজার, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যতে বিধিনিষেধ আরোপ করে দেওয়া হয়। করোনা রুগী মারা গেলে শেষকৃত্য সম্পন্নতেও চলে নিষেধ। ভয়ে নিকট আত্মীয় যায় না। এই অবস্থাতে কিন্তু নারীর উপর ধর্ষণ চলছে। করোনা আক্রান্ত জেনেও ধর্ষণের সুজোগ হাতছাড়া করলোনা পুরুষ রুপি দানব। মেয়েদের কি মুক্তি নাই !!