মধ্যপ্রাচ্যে সন্ত্রাসের জন্য দায়ী আমেরিকা, তেহরান

নিউজ ডেস্ক : ইরান সব সময় মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর সঙ্গে শান্তিপূর্ণ সম্পর্ক রক্ষার পক্ষপাতি এবং আঞ্চলিক মতপার্থক্য নিরসনের যেকোনো পদক্ষেপকে তেহরান স্বাগত জানায়। এ মন্তব্য করেছেন ইরানের পররাষ্ট্র সম্পর্ক বিষয়ক কৌশলগত পরিষদের সভাপতি ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী কামাল খাররাজি।

মঙ্গলবার তেহরানে নিজ দপ্তরে ইরানে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত চ্যাং হুয়া’র সঙ্গে এক বৈঠকে কামাল খাররাজি আরো বলেন, মধ্যপ্রাচ্যের কিছু দেশের মার্কিন-নির্ভরতা হচ্ছে আঞ্চলিক মতপার্থক্যের প্রধান উৎস। তিনি বলেন, ইরান মনে করে পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলের নিরাপত্তা রক্ষার জন্য পশ্চিমা সামরিক উপস্থিতির কোনো প্রয়োজন নেই বরং এ অঞ্চলের দেশগুলোই এখানকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারে।

পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলে মার্কিন সামরিক উপস্থিতির প্রতি ইঙ্গিত করে কামাল খাররাজি বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনা নিরসন করতে চাইলে আমেরিকাকে এ অঞ্চল থেকে সেনা প্রত্যাহার করতে হবে।

ইরানের ওপর মার্কিন ‘পাশবিক নিষেধাজ্ঞা’র কথা উল্লেখ করে ইরানের এই শীর্ষস্থানীয় নীতি নির্ধারক বলেন, চীনের সঙ্গে ইরানের সম্পর্ক পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞার কারণে কাঙ্ক্ষিত পর্যায়ে উন্নীত করা সম্ভব হচ্ছে না।

তিনি পাশ্চাত্যের সঙ্গে ইরানের স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতাকে পুরোপুরি ধসে পড়ার হাত থেকে রক্ষা করার জন্য চীন ও রাশিয়াকে ধন্যবাদ জানান।সাক্ষাতে চীনা রাষ্ট্রদূত দু’দেশের মধ্যে বিদ্যমান সম্পর্কে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, এ সম্পর্ক ভবিষ্যতে আরো জোরদার হবে।